1. nasiruddinsami@gmail.com : sadmin :
সিংগাইরে খাল দখল করে ফ্যাক্টরি নির্মাণের সত্যতা পেয়েছে প্রশাসন - সংবাদ সারাদেশ ২৪
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন

সিংগাইরে খাল দখল করে ফ্যাক্টরি নির্মাণের সত্যতা পেয়েছে প্রশাসন

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১০ জুন, ২০২০
  • ৭৩ বার

ডেস্ক রিপোর্ট: মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের গাড়াদিয়া বাসষ্ট্যান্ডের পূর্ব পাশের নয়নজলি খাল দখল করে ফ্যাক্টরি নির্মাণের সত্যতা পেয়েছে প্রশাসন। বিভিন্ন গণমাধ্যমে “সিংগাইরে খাল দখল করে ফ্যাক্টরি নির্মাণ” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হলে টনক নড়ে উপজেলা ভূমি অফিসের। প্রকাশিত সংবাদের সূত্র ধরে এসি ল্যান্ড মেহের নিগার সুলতানা বায়রা ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা ঝিলন খানকে তদন্তের নির্দেশ দেন।

সূত্রমতে, ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা সার্ভেয়ার নিয়ে নির্মাণাধীন ঢাকা প্যাকেজিং অ্যান্ড প্রিন্টিং ইন্ডাষ্ট্রিজ নামের প্রতিষ্ঠান কর্তৃক খালের জায়গা দখলের প্রমাণ পায়। প্রতিষ্ঠানটি স্থানীয় প্রভাবশালী দালালচক্রের সহায়তায় হেমায়েতপুর-সিংগাইর-মানিকগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের ওপর অর্ধকোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত কালভার্টটি অকেজো করে অবৈধ এ স্থাপনা নির্মাণ অব্যাহত রেখেছে। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে দীর্ঘ দিনের পুরনো নয়নজলি নামের খালটি। সূত্র আরো জানায়, স্থানীয় ভূমি অফিসের প্রতিবেদনে এমন তথ্য ওঠে এসেছে। ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী ২৮০ ফুট দৈর্ঘ্যরে উত্তর পাশে ১৫ ফুট ও দক্ষিন পাশে ২২ ফুট প্রশস্ত প্রায় ৮ শতাংশ সরকারি সম্পত্তি অবৈধভাবে দখল করে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

রেকর্ডপত্র পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বায়রা মৌজায় আরএস ৫৭২৮ ও ৫৭২৯ দাগের ৭৫ শতাংশ জমি গত ৮ মাস আগে ক্রয় করে প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া পশ্চিম পাশ ঘেঁষে রাস্তা সংলগ্ন নয়নজলি খালের প্রায় ৮শতাংশ জায়গা দখল করে মাটি ভরাট ও বাউন্ডারি দেয়াল নির্মাণ করে। এতে বন্ধ হয়ে যায় খালটির পানি প্রবাহ। এ খালটিই বায়রার চালিতাতলা চকের (পানু বাবুর বন্ধ) পানি প্রবেশ ও বের হওয়ার এক মাত্র পথ। এটি বন্ধ করে দেয়ায় ওই চকে জলাবদ্ধতার আশংকায় চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে স্থানীয় কৃষকদের মধ্যে। বায়রা গ্রামের কৃষক শহিদুল ইসলাম , আমিনুর হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক ও মাজেদ আলীসহ অনেকেই এ অবৈধ স্থাপনা দ্রুত উচ্ছেদের দাবী জানান। সেই সাথে ওই খালটিকে সচল করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

সরেজমিনে, নির্মাণাধীন ঢাকা প্যাকেজিং অ্যান্ড প্রিন্টিং ইন্ডাষ্ট্রিজে গিয়ে মালিকপক্ষের কোনো লোকজনকে পাওয়া যায়নি। স্থানীয় বাইমাইল গ্রামের মোঃ সেলিমের পুত্র পলাশ হোসেন নিজেকে মালিকপক্ষের প্রতিনিধি দাবী করে বলেন, যা কিছু জানার আমাকে জিজ্ঞেস করতে পারেন। প্রতিষ্ঠানের মালিক আমাকে এ প্রজেক্টের দায়িত্ব দিয়েছেন। মালিকপক্ষের কারো মোবাইল নাম্বার চাইলে দিতে অপারগতা প্রকাশসহ পত্রিকায় নিউজ না করার জন্যও অনুরোধ করেন তিনি।

বায়রা ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা ঝিলন খান বলেন, আমি কাজের শুরুতে বাধা দেয়া সত্ত্বেও তারা সরকারি জায়গাজুড়ে স্থাপনা নির্মাণ শুরু করেন। এসিল্যান্ড স্যারের নির্দেশে ঘটনাস্থলে গিয়ে অবৈধ দখলের সত্যতা পেয়ে রিপোর্ট দিয়েছি।
এ ব্যাপারে সিংগাইর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মেহের নিগার সুলতানা বলেন, মঙ্গলবার (৯জুন) ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই জমি পরিমাপ না হওয়া পর্যন্ত নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2023 SangbadSaraDesh24.Com
Theme Customized By BreakingNews